Топ-100
Back

ⓘ নীতিশাস্ত্র




                                               

চিকিৎসাবৈজ্ঞানিক নীতিশাস্ত্র

চিকিৎসাবৈজ্ঞানিক নীতিশাস্ত্র হল চিকিৎসার মান ও প্রয়োগের ক্ষেত্রে নৈতিক মূলনীতিসংক্রান্ত বিদ্যা। একটি পাণ্ডিত্যপূর্ণ শাখা হিসেবে, চিকিৎসাবৈজ্ঞানিক নীতিশাস্ত্র বাস্তব জ্ঞানের ব্যবহারিক প্রয়োগ এবং সেই সাথে তার ইতিহাস, দর্শন ও সমাজবিজ্ঞান বিষয়ক কাজগুলোকে পরিবেষ্টন করে রাখে।

                                               

ফলিত নীতিশাস্ত্র

ফলিত নীতিশাস্ত্র হচ্ছে ব্যক্তিগত বা সর্বজনীন সমস্যা নির্দিষ্ট কিছু বিষয় বা সমস্যার ক্ষেত্রে নৈতিক অবস্থান থেকে নেয়া একটি দার্শনিক অবস্থান, যেখানে সেই বিষয় বা সমস্যার ক্ষেত্রে নৈতিক বিচার করতে হয়। তাই এটি আমাদের প্রাত্যহিক জীবনের অনেক ক্ষেত্রে কোনটি নৈতিক তা শনাক্ত করার জন্য দার্শনিক পদ্ধতি ব্যবহার করে। যেমন জীবনীতিশাস্ত্র সম্প্রদায় জীবন বিজ্ঞানে আইনি সমস্যার ক্ষেত্রে সঠিক কার্য কী হবে তা শনাক্ত করে, যেমন ইউথেনেশিয়া, স্বল্প স্বাস্থ্য সম্পদের বণ্টন, অথবা গবেষণায় মানব ভ্রূণের ব্যবহার। পরিবেশগত নীতিশাস্ত্র বাস্তুসংস্থানগত বিভিন্ন প্রশ্ন নিয়ে সচেতন থাকে, যেমন দূষণ নির্মূল করার জন্য সরকা ...

                                               

বর্ণনামূলক নীতিশাস্ত্র

বর্ণনামূলক নীতিশাস্ত্র হচ্ছে মানুষের নৈতিকতা সম্পর্কিত বিশ্বাস সংক্রান্ত পাঠ। একে তুলনামূলক নীতিশাস্ত্রও বলা হয়। বিধান নীতিশাস্ত্র বা আদর্শগত নীতিশাস্ত্র, এবং পরানীতিশাস্ত্এর সাথে এর তুলনা করা হয়। নীতিশাস্ত্রের বিভিন্ন শাখাকে নিম্নোক্ত প্রশ্নাবলির সাহায্যে তুলনা করা যায়। বর্ণনামূলক নীতিশাস্ত্র: কোনটি সঠিক- এটা মানুষ কিভাবে চিন্তা করে? পরানীতিশাস্ত্র: "সঠিক" অর্থ কী? আদর্শগত বিধান নীতিশাস্ত্র: কীভাবে ব্যক্তির কাজ করা উচিৎ? ফলিত নীতিশাস্ত্র: আমরা কীভাবে নৈতিক জ্ঞান গ্রহণ করি এবং তার প্রয়োগ করি?

                                               

আদর্শগত নীতিশাস্ত্র

আদর্শগত নীতিশাস্ত্র হচ্ছে নৈতিক ক্রিয়া সংক্রান্ত অধ্যয়ন। এটি দার্শনিক নীতিশাস্ত্রের একটি শাখা যা কিভাবে একজন নৈতিকভাবে কাজ করতে বাধ্য থাকে এ বিষয়ক কিছু প্রশ্নের সমষ্টি নিয়ে গবেষণা করে। আদর্শগত নীতিশাস্ত্র অধি-নীতিশাস্ত্র থেকে ভিন্ন; কারণ আদর্শগত নীতিশাস্ত্র কার্যের সঠিকতা ও ভুল বিষয়ক আদর্শ নিয়ে পরীক্ষা করে, আর অধি-নীতিশাস্ত্রে নৈতিক ভাষার অর্থ এবং নৈতিক বিষয়ের অধিবিদ্যা নিয়ে আলোচনা করে। আদর্শগত নীতিশাস্ত্র বর্ণনামূলক নীতিশাস্ত্র থেকেও ভিন্ন, কারণ বর্ণনামূলক নীতিশাস্ত্রে ব্যক্তির নৈতিক বিশ্বাস নিয়ে আলোচনা করা হয়। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, বর্ণনামূলক নীতিশাস্ত্র নির্ণয় করার চেষ্টা কর ...

                                               

ধর্মে নীতিশাস্ত্র

নীতিশাস্ত্র বলতে ঠিক বেঠিক আচরণকে সংরক্ষণ করা, সঠিক সুপারিশ প্রদান ও সেগুলোকে প্রণালীবদ্ধকরন বুঝায়। নীতির একটি মূল বিষয় হল সুন্দর জীবন, যা মানুষ অল্পতে তুষ্ট থেকে সুন্দর করে যাপন করবে। অনেক দার্শনিক প্রথাগত নৈতিক আচরণের চেয়ে এভাবে সুন্দর জীবনযাপনকে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন। অধিকাংশ ধর্মেরই একটা নৈতিক উপাদান থাকে যাদাবিকৃত অতিপ্রাকৃতিক কোন প্রকাশ বা অনুশাসন থেকে সৃষ্টি হয়। অনেকে দৃঢ়তার সাথে বলে থাকেন যে নৈতিক জীবনযাপনের জন্য ধর্মের প্রয়োজন। ব্লাকবার্ন বলেন যে, অনেক লোক আছে যারা মনে করে তারা যদি ধর্মের অনুশাসনযুক্ত কঠিন সামাজিক নিয়মের ভিতর থাকে তো ভাল থাকতে পারে।

                                               

পরিবেশ নীতিশাস্ত্র

পরিবেশ নীতিশাস্ত্র হচ্ছে পরিবেশ দর্শনের একটি অংশ যা নীতিশাস্ত্রের গতানুগতিক মানবভিত্তিক সীমাবদ্ধতা অতিক্রম করে অ-মানব জগত নিয়ে আলোচনা করে। পরিবেশ আইন, পরিবেশ সমাজতত্ত্ব, পরিবেশ ধর্মতত্ত্ব, পরিবেশ অর্থনীতি, বাস্তুসংস্থান এবং পরিবেশ ভুগোল সহ বিস্তৃত পরিসরের বিষয়ের উপর পরিবেশ নীতিশাস্ত্রের প্রয়োগ আছে। পরিবেশের উপর ভিত্তি করে মানুষকে গ্রহণ করতে হয় এরকম অনেক নৈতিক সিদ্ধান্ত রয়েছে, যেমন: মানুষের কি জেনেশুনে মানবতার উপকারের জন্য প্রজাতির বিলুপ্তির কারণ হওয়া চালিয়ে যাওয়া উচিৎ? মানুষের কি মানুষের ব্যবহারের জন্য বনাঞ্চল পরিষ্কার করা চালিয়ে যাওয়া উচিৎ? ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য মানুষের কী কী প ...

                                               

পরানীতিশাস্ত্র

পরানীতিশাস্ত্র, পরানীতিবিদ্যা বা অধিনীতিবিদ্যা হচ্ছে নীতিশাস্ত্রের একটি শাখা যা নৈতিক বৈশিষ্ট্যসমূহ, উক্তি, প্রবণতা এবং বিচারের প্রকৃতি বোঝার চেষ্টা করে। পরানীতিশাস্ত্র, হচ্ছে নীতিশাস্ত্রের চারটি শাখার মধ্যে একটি যা সাধারণভাবে দার্শনিকদের মধ্যে স্বীকৃত হয়ে থাকে। অন্যগুলো হল বর্ণনামূলক নীতিশাস্ত্র, আদর্শগত নীতিশাস্ত্র ও ফলিত নীতিশাস্ত্র। যেখানে আদর্শগত নীতিশাস্ত্র "আমার কী কাজ করা উচিৎ" এরকম প্রশ্ন নিয়ে কাজ করে, এবং এভাবে এর মাধ্যমে কিছু নৈতিক মূল্যবোধ অর্পণ করে এবং অন্যগুলোকে বাতিল করে দেয়, পরানীতিশাস্ত্র সেখানে "ভালত্ব goodness কাকে বলে" এবং "কীভাবে আমরা বলতে পারি যে কী ভাল আর কী মন্দ? ...

                                               

প্রকৌশলী

প্রকৌশলী রা হলেন দক্ষ প্রযুক্তিবিদ । গাণিতিক ও বৈজ্ঞানিক জ্ঞানের প্রয়োগ ঘটিয়ে ব্যবহারিক সমস্যার নিরাপদ এবং অর্থনৈতিক বিচারে গ্রহণযোগ্য সমাধান খোঁজাই প্রকৌশলীর কাজ । প্রকৌশলী শব্দের ইংরেজি প্রতিশব্দ engineer এসেছে লাতিন ingenium থেকে, যার অর্থ চালাকি । তবে গত কয়েক শতাব্দীতে শিল্প বিপ্লবেপর ক্রমাগত প্রযুক্তিগত উন্নয়নের সাথে সাথে অর্থেরও খানিকটা পরিবর্তন ঘটেছে । বর্তমানে প্রকৌশলী বলতে ব্যবহারিক বিজ্ঞানীদেরকে বোঝানো হয় ।

                                               

ভালো ও মন্দ

ধর্ম, নীতিশাস্ত্র, দর্শন এবং মনোবিজ্ঞানের "ভাল এবং মন্দ" খুব সাধারণ দ্বিধাবিজ্ঞান। ম্যানচিইন এবং আব্রাহামিক ধর্মীয় প্রভাবের সংস্কৃতিগুলিতে মন্দকে সাধারণত ভালোর দ্বৈতবাদী বৈপরীত্য বলে মনে করা হয়, যার মধ্যে ভালকে বিরাজ করতে হবে এবং মন্দকে পরাভূত করা উচিত। বৌদ্ধ আধ্যাত্মিক প্রভাবের সংস্কৃতিগুলিতে, ভাল-মন্দ উভয়ই একটি বৈরাগ্য দ্বৈততার অংশ হিসাবে বিবেচিত হয় যা ভাল এবং মন্দকে দুটি বিপরীত নীতি হিসাবে স্বীকৃতি দেওয়ার অর্থে শূন্যতা অর্জন করতে হবে, যা বাস্তবতা নয়, দ্বৈততা খালি করে দেয় তাদের মধ্যে, এবং একত্ব অর্জন। দুষ্টতা, একটি সাধারণ প্রসঙ্গে, যা অনুপস্থিত বা বিপরীত যা উত্তম হিসাবে বর্ণনা করা ...

                                               

মূল্য (নীতিশাস্ত্র)

নীতিশাস্ত্রে, মূল্য কোন জিনিস বা কর্মের গুরুত্বের ডিগ্রিকে বোঝায়, কোন ক্রিয়াগুলি করণীয় সবচেয়ে ভাল বা কোন উপায়টি সবচেয়ে ভাল বাঁচার পক্ষে বা বিভিন্ন ক্রিয়াগুলির তাত্পর্য বর্ণনা করার লক্ষ্যের সাথে লক্ষ্য নির্ধারণ করে।মূল্য সিস্টেম নির্বাসনকর এবং প্রচলিত প্রথামত বিশ্বাসের হয়;এগুলি কোনও ব্যক্তির নৈতিক আচরণকে প্রভাবিত করে বা তাদের উদ্দেশ্যমূলক ক্রিয়াকলাপগুলির ভিত্তি। প্রায়শই প্রাথমিক মানগুলি শক্তিশালী হয় এবং গৌণ মানগুলি পরিবর্তনের জন্য উপযুক্ত। কোন ক্রিয়াকে মূল্যবান করে তোলে তা পরিবর্তিত অবজেক্টের নৈতিক মানের উপর নির্ভর করে। "নৈতিক মান" সমেত একটি বস্তুকে "নৈতিক বা দার্শনিক ভাল" বলা য ...

                                               

দর্শনের রূপরেখা

নিম্নলিখিত রূপরেখা একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণ এবং দর্শনের সাময়িক নির্দেশিকা হিসেবে প্রদান করা হয়েছে: দর্শন – অস্তিত্ব, জ্ঞান, মান, কারণ, মন, এবং ভাষা ইত্যাদি বিষয় সংক্রান্ত সাধারণ এবং মৌলিক সমস্যার গবেষণা।

                                               

দার্শনিক

একজন দার্শনিক হচ্ছেন এমন একজন ব্যক্তি, যিনি দর্শন শাস্ত্র অধ্যয়ন করেন। এই ব্যক্তির সাধারণত এক বা একাধিক বিষয়ের উপর বিস্তর জ্ঞান থাকে। সেসকল বিষয়ের মধ্যে রয়েছে নন্দনতত্ত্ব, নীতিশাস্ত্র, যুক্তি, অধিবিদ্যা, সামাজিক দর্শন ও রাজনৈতিক দর্শন।

                                               

ন্যায়যুদ্ধ তত্ত্ব

ন্যায়যুদ্ধ তত্ত্ব এমন সব যুদ্ধের বৈধতা দান করে যেখুলো সর্বপ্রকার শোষণ, অত্যাচার, উৎপীড়ন থেকে মুক্তিলাভভের জন্য; বৈদেশিক আক্রমণ বৈদেশিক নিয়ন্ত্রণ থেকে আত্মরক্ষার জন্য এবং সাম্রাজ্যবাদের শৃঙ্খল থেকে পরাধীন দেশ ও উপনিবেশসমূহকে মুক্ত করার জন্য চালানো হয়। প্রাচীন রোমান দর্শন ও ক্যাথলিক চিন্তাধারা থেকে নীতিশাস্ত্রের এ বিশেষ তত্ত্বটির উদ্ভব হয়েছে। এ তত্ত্বটি মূলত ধর্মতাত্ত্বিক, নীতিশাস্ত্রবিদ ও আন্তর্জাতিক নীতিনির্ধারকগণ অনুশীলন ও চর্চা করেন। এ তত্ত্বমতে যুদ্ধকে অবশ্যই দর্শনগত, ধর্মীয় ও রাজনৈতিক নিয়মনীতি মেনে চলতে হবে।