Топ-100
Back

ⓘ নবীগঞ্জ জে কে উচ্চ বিদ্যালয়




                                     

ⓘ নবীগঞ্জ জে কে উচ্চ বিদ্যালয়

নবীগঞ্জ উপজেলা সদরে অবস্থিত নবীগঞ্জ জে, কে উচ্চ বিদ্যালয় টি উক্ত এলাকার একটি আদর্শ বিদ্যালয় হিসেবে পরিচিত। ১৯১৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়ে বিদ্যালয়টি ২০১৬ সালে শতবর্ষ পূর্ণ করে। বিদ্যালয়টি নবীগঞ্জ জে কে মডেল উচ্চ বিদ্যালয় হিসেবেও পরিচিত।

                                     

1. ইতিহাস

১৯১৬ সালে নবীগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের আদিত্যপুর গ্রামের প্রকাশ চন্দ্র দে ও দশরত চন্দ্র দে নামে দু’সহোদর নবীগঞ্জে যোগল-কিশোর বিদ্যালয় নামে এ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত করেন। বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক ছিলেন ধীরেন্দ্র নাথ গুহ এবং বর্তমানে ১৮তম প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন মোঃ আব্দুস ছালাম। ১৯৮৪ সালের ১ জানুয়ারী বিদ্যালয়টি এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠান হিসাবে স্বীকৃতি পায়। ২০১৬ সালে বিদ্যালয়টি শতবর্ষে পা রাখে। একই বছরের ১৩ জুলাই সিলেট শিক্ষা বোর্ডের সহকারী পরিচালক মাধ্যমিক-১ সাখাওয়াত হোসেন স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে বিদ্যালয়টিকে সরকারী করণ ঘোষণা করা হয়।

                                     

2. শিক্ষক ও ছাত্রছাত্রী

বিদ্যালয়টিতে প্রায় ১৪০০ ছাত্র-ছাত্রী পড়ালেখা করছে এবং ১৫ জন স্থায়ী সহ মোট ২২ জন শিক্ষক শিক্ষকা পাঠদান কাজে নিয়োজিত আছেন। ২০১৬ সালের ২৭ ও ২৮ জানুয়ারী বিদ্যালয়ের বর্তমান ও প্রাক্তন ছাত্রছাত্রী এবং শিক্ষক অভিভাবকদের সমন্বয়ে অনুষ্ঠিত হয় বিদ্যালয়ের শতবর্ষ পূর্তি অনুষ্ঠান।

                                     

3. ঐতিহাসিক স্থান

১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের আশ্রয়স্থল হিসেবেও ব্যবহৃহত এই বিদ্যালয়ের বিভিন্ন ভবন। এছাড়া বর্তমানে বিদ্যালয়ের সামনের সুবিশাল মাঠটিও ব্যবহৃত হচ্ছে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও ঐতিহাসিক সভাস্থল হিসেবে। ১৯৯৭ সালে তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী ও বর্তমান প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা উক্ত মাঠের এক বিশাল সমাবেশে দাঁড়িয়ে বিদ্যালয়টিকে সরকারী করার ঘোষণা দেন।

                                     

4. সরকারী করণ

বিদ্যালয়টিকে সরকারী করণ করার জন্য অত্র বিদ্যালয়ের নবীন-প্রবীন ছাত্র-ছাত্রীরা দীর্ঘদিন ধরে মানববন্ধন সহ বিভিন্ন কর্মসূচীর পালন করে। অবশেষে ১৯৯৭ সালে তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেতা ক্ষমতায় গেলে বিদ্যালয়টিকে সরকারী করণ করা হবে" ঘোষণা করেন। ২০১৬ সালের ১৩ জুলাই বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার শত বছর পর বিদ্যালয়টিকে সরকারী করণ করা হয়।

                                     

5. পোষাক

বিদ্যালয়টিতে মোট দুটি রং ব্যবহার করা হয়। সাদা এবং নীল। ছাত্রদের সাদা হাফ শার্ট ও নীল রঙের প্যান্ট এবং ছাত্রীদের সাদা ফ্রকের উপর নীল ফিতা ও নীল পায়জামা বিদ্যালয়ের পোষাক হিসাবে নির্ধারিত রয়েছে।