Топ-100
Back

ⓘ ইসলাম ধর্মে ঈশ্বর




                                               

ইসলাম ধর্মে পিটার

সাইমন পিটার, আরবী ভাষায় শামাউন আস-সাফা বা শামৌন ইবনে হামন নামে পরিচিত, ঈসা -এর মূল অনুসারী বা শিষ্যদের একজন ছিলেন তিনি। যদিও ঈশার শিষ্যরা ইসলামী ধর্মতত্ত্বের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন নি, তারা উল্লেখযোগ্য একারণেই যে তারা কেবলমাত্র কুরআনে নির্দিষ্টভাবে চিহ্নিত শিষ্যদের একটি দল। পিটারের চিত্রটি, বিশেষত শিয়া ধর্মতত্ত্বের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ কারণ তিনি সাধারণত ঈসার উত্তরসূরি হিসাবে বিবেচিত হন, যিনি ঈসা পরবর্তী সময়ে বিশ্বস্তদের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন, এবং তাই পিটার খ্রিস্টানদের -দের দৃষ্টিতে প্রেরিতদের যুবরাজ। কুরআন স্পষ্ট বিবৃতি দেয় যে ঈসা ও তাঁর শিষ্যরা আল্লাহর প্রতি অবিচল ঈমানদ ...

ইসলাম ধর্মে ঈশ্বর
                                     

ⓘ ইসলাম ধর্মে ঈশ্বর

ইসলাম ধর্মে ঈশ্বর অত্যন্ত সুস্পষ্টভাবে সংজ্ঞায়িত একটি ধারণা। ইসলাম ধর্মমতে "রব" বা "প্রতিপালক" ও "সৃষ্টিকর্তা" একজনই। তাকে আরবি ভাষায় "একক প্রতিপালক" বোঝাতে ব্যবহৃত শব্দ আল্লাহ বলে সম্বোধন করা হয়‎‏, যাকে বিশ্বজগতের একমাত্র সৃষ্টিকর্তা ও প্রভু বলে ইসলাম ধর্মানুসারীরা বিশ্বাস করেন। ইসলাম ধর্মে আল্লাহ্ হলেন একটি নৈবর্তিক ধারণা, যা দ্বারা সমগ্র বিশ্ব জগতের সর্বোচ্চ ক্ষমতার অধিকারী সৃষ্টিকর্তা এবং প্রভুকে বুঝানো হয়। ইসলামের প্রধান ঐশী ধর্মগ্রন্থ কুরআনে স্রষ্টাকে "আল্লাহ্" নামে ডাকা হয়েছে। "আল্লাহ" শব্দটির বুৎপত্তিগত অর্থ হল "একক প্রতিপালক" "। অন্যান্য ইব্রাহিমীয় ধর্মের মত ইসলামেও "একক প্রতিপালক" কে একমাত্র সর্বোচ্চ সত্তা, সর্বোচ্চ ও অসীম ক্ষমতার অধিকারী এবং অসীম পরিমাণ উত্তম গুণে গুণাণ্বিত বিশ্বজগতের একমাত্র সৃষ্টিকর্তা, পালনকর্তা এবং মানুষের একমাত্র উপাসনাযোগ্য সত্তা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।। আল্লাহ শব্দটি আরবি ভাষায় লিঙ্গ পার্থক্যবিহীন। আরবি ভাষী খ্রিষ্টান ও ইহুদীরাও "সুনির্দিষ্ট/একক ঈশ্বর" বোঝাতে "আল্লাহ" শব্দটি ব্যবহার করে থাকেন, আর "ইলাহ্" শব্দটি আরবিতে যেকোন উপাস্য বোঝাতে ব্যবহৃত হয়।

                                     

1. একত্ববাদ

তাওহীদ বা দৃঢ়ভাবে একত্ববাদে বিশ্বাসই ইসলামের মূল ভিত্তি, যা আল্লাহর একত্ববাদ এবং অতুলনীয়তা wāḥid দৃঢ়ভাবে প্রকাশ করে। ইসলামের মৌলিক ধর্মবিশ্বাস, শাহাদাহ ইসলামে প্রবেশের জন্য শপথ করে বলা, যার সাথে সম্পর্কিত لا إله إلا الله lā ʾilāha ʾillallāh, বা, "আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে একমাত্র আল্লাহ্‌ ছাড়া কোন উপাস্য নেই।" পবিত্র কুরআন অনুসারে আল্লাহ সমগ্র সৃষ্টির অমুখাপেক্ষী।

কুরআনে বলা হয়েছে,

"বলুন, তিনিই আল্লাহ, এক-অদ্বিতীয়। আল্লাহ্ হচ্ছেন ‘সামাদ। তিনি কাউকে জন্ম দেননি এবং তাঁকেও জন্ম দেয়া হয়নি। এবং তাঁর সমতুল্য কেউই নেই।"

ইসলামী বিশ্বাস অনুসারে আল্লাহর কোনো গুণাবলীই সৃষ্টজীবের মত নয়। সৃষ্টজীব যেভাবে শোনে, আল্লাহ সেভাবে শোনেন না। সৃষ্টজীব যেভাবে দেখে, আল্লাহ সেভাবে দেখেন না। আল্লাহর গুণাবলীর ধরন মানুষের অজানা। কুরআনে বলা হয়েছে,

".কোনো কিছুই তাঁর সদৃশ নয়, তিনি সর্বশ্রোতা, সর্বদ্ৰষ্টা।"

মুসলিমরা খ্রিস্টান ধর্মের ট্রিনিটি মতবাদকে বহু-ঈশ্বর ধারণার সাথে তুলনা করে। ইসলামে, ঈশ্বর আল্লাহ্‌ সবার বোধশক্তির বাইরে এবং কোন ভাবেই তার সৃষ্টির সদৃশ নয়। ইসলাম ধর্মে ঈশ্বরের কোনরূপ প্রতিমূর্তি গড়া সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

                                     

2. সৃষ্টির সহিত সম্পর্ক

অন্যান্য ইব্রাহীমিয় ধর্মের মতো, আল্লাহ্‌ কে বিশ্বাস করা হয় নবী-রাসুলদের কাছে প্রেরিত ওহীর মাধ্যমে সৃষ্টির সহিত যোগাযোগ রাখতে।

মুসলিমরা বিশ্বাস করে কুরআন আল্লাহ্‌র পক্ষ থেকে প্রেরিত কিতাব যা আক্ষরিক অর্থে মুহাম্মদ এর উপর অবতীর্ণ হয়েছে।

হাদীস হচ্ছে মুহাম্মদ এর বক্তব্য ও কর্ম সমূহের লিখিত বিবরণ, হাদীসে কুদসি হচ্ছে হাদিসেরই একটি উপ-শাখা, যা আল্লাহ্‌র বানী নবীর মুখে উচ্চারিত হিসেবে মুসলিমরা গণ্য করে। আলী ইবনে মুহাম্মদ আল-জুরজানির মতে, কুরআনে হাদীসে কুদসি বলতে বুঝায় যেগুলোর শুরুতে "মুহাম্মদ এর বক্তব্য" থাকবে, এবং শেষে "সরাসরি আল্লাহ্‌র বানী" থাকবে।

মুসলিমরা বিশ্বাস করে এই মহাবিশ্বের সবকিছু আল্লাহ্‌র ঐচ্ছিক আদেশের দ্বারা সৃষ্টি হয়েছে, "."হয়ে যাও," এবং সব হয়ে যায়।" এবং জীবনের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে আল্লাহ্‌র উপাসনা করা। তিনি এমন এক স্বত্বা যার কাছে কোন প্রয়োজনে বা চরম দুর্দশায় ডাক দিলে তিনি সাথে সাথে সাড়া দেন। আল্লাহ্‌ কে ডাকতে পীর,পাদ্রী বা ধর্ম যাজকের মতো কোন মধ্যস্থকারীদের প্রয়োজন নেই ইমাম বুখারী তাঁর সহীহ বুখারী তে একটি হাদীস-এ-কুদসি"তে বর্ণনা করেন যে আল্লাহ্‌ বলেছেন, "আমি আমার বান্দাদের প্রতি তেমন যেমন তারা আমাকে মনে করে।"

আল্লাহ্‌র সম্পর্ক তার বান্দাদের প্রতি এরকম যে তিনি চান যে তার দাসরা তার কাছে তওবা করবে। যদি মৃত্যুর পূর্বে তারা তওবা না করে, তবে তার আযাব তাদের বিপদগ্রস্ত করবে। কুরআনে বলা হয়েছে,

"আমার বান্দাদের জানিয়ে দাও যে, আমি নিশ্চয় ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু। আর আমার আযাবই যন্ত্রণাদায়ক আযাব।"

                                     

3. বহিঃসংযোগ

  • Allahs 99 Names, Their Meanings and Related Audio at www.searchtruth.com.
  • Allah, article by Encyclopaedia Britannica.
  • Who Is Allah?
  • মুহাম্মাদ হারুন হুসাইন লিখিত বই "মহান আল্লাহর মা’রিফাত"
  • Allah, the Unique Name of God
  • Some Names of Allaah